যে সময়টায় একেবারেই পানি পান করবেন না। নাহলে ঘটতে পারে প্রাণঘাতী ভয়ঙ্কর রোগ!

গোপন ভিডিওটি দেখতে প্রাপ্তবয়স্করা নিচের ছবি তে ক্লিক করুন। শুধুমাত্র প্রাপ্তবয়স্কদের জন্যে। বাচ্চাদের জন্যে নয়।

‘পানির অপর নাম জীবন’। জীবন বাঁচানোর পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ, এমনকি ত্বকের যত্নেও পানির ভূমিকা রয়েছে। আবার এই পানিরই অপর নাম ‘মরণ’ বললে ভুল হবে না। পানি তখনই উপকারী, যখন আপনি নিয়ম মেনে বিশুদ্ধ পানি পান করবেন।

 সবকিছুরই নিয়ম রয়েছে। পানিও ব্যতিক্রম নয়। পানি যে কোনো সময় পান করা গেলেও, খাবারের সময় পানি পানের ক্ষেত্রে নিয়ম পালন করাটা জরুরি। অন্যথায় জীবন রক্ষাকারী এই পানি শরীরে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। পানি পান করার ক্ষেত্রে কিছু জেনে নিন কিছু সতর্কতা।

১. খাবার শেষ করেই পানি পান করা অনুচিত। খাবার শেষ করার পর অন্তত এক ঘণ্টা অপেক্ষা করুন। এরপর পানি পান করুন। খাবারের ঠিক আগে যেমন পানি পান উচিত নয়, তেমনি ঠিক পরে পানি পান করলে বদহজম থেকে শুরু করে পেটে গ্যাস হওয়া, ঢেকুর ওঠার আশঙ্কা থাকে।

২. তাড়াহুড়া করে কখনও পানি পান করবেন না। জোর করে বেশি পানি পান করারও প্রয়োজন নেই। আপনার পিপাসাই জানিয়ে দেবে কখন কতটুকু পানি আপনার দরকার।

৩. বরফ ঠাণ্ডা পানি পান যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি পান করুন।

১৮+ ভিডিওটি দেখতে নিচের ছবিতে ক্লিক করুন। বাচ্চারা ভুলেও ক্লিক করবেনা, দূরে থাকো।

৪. অনেক সময় পানি পরিষ্কার, স্বচ্ছ রাখতে ক্লোরিন মেশানো হয়। ক্লোরিন কিডনি, লিভার, থাইরয়েড ও হার্টের জন্য ক্ষতিকর। শরীর থেকে ভিটামিন-ই শুষে নেয় ক্লোরিন। তাই ক্লোরিনযুক্ত পানি পান থেকে বিরত থাকুন।

 

৫. খাবার খেতে খেতে কখনও পানি পান করবেন না। অনেকেই পানি ছাড়া খাবার খেতে পারেন না। এ অভ্যাস থাকলে দ্রুত ত্যাগ করুন। এটি শরীরের জন্য ক্ষতিকারক।

৬. ভাত বা ভারি কিছু খাওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে পানি পান উচিত নয়। এ সময় পানি পান করলে হজমে সমস্যা হয়। খাবার অন্তত ৩০ মিনিট আগে পানি পান করা যেতে পারে।

ভিডিওটি এইখানে, নিচের ছবিতে ক্লিক করে ফ্রি দেখুন ভিডিওটি... পোস্টটি সেয়ার করবেন। আপনার একটি সেয়ারেই বেঁচে যাবে হাজারো মানুষের প্রান।